Categories
অন্যান্য

স্বল্পপুঁজিতে বেকারি ব্যবসা ব্যবসা উদ্যোগ ক্যারিয়ার টিপস

হালকা খাবারের ক্ষেত্রে বেকারির খাবার সবার সেরা পছন্দ। অতিথি আপ্যায়নের ক্ষেত্রেও জনপ্রিয় এই খাবারগুলো। বিকালের নাস্তার টেবিলে রুটি, বিস্কুট অথবা কেকের কোনো বিকল্প নেই। কেক ছাড়া জন্মদিন কিংবা কোনো প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানের কথা তো ভাবাই যায় না এখন। ইদানীং বেকারি পণ্য তালিকায় যুক্ত হয়েছে ফাস্টফুড, মিষ্টিসহ হরেক পদের মজার খাবার। এসব পণ্যের দাম সমাজের সব শ্রেণির মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকায় দিন দিন এর চাহিদা বাড়ছে। উৎপাদন খরচ কম হওয়ায় স্বল্পপুঁজিতে শুরু করা যায় এই বেকারি ব্যবসা।

প্রস্তুতি : বেকারির ব্যবসা শুরুর আগে বেকারি ব্যবসায়ে অভিজ্ঞদের কাছ থেকে পরামর্শ এবং তথ্য সংগ্রহ করা প্রয়োজন। বেকারি ব্যবসায়ী এবং যেসব প্রতিষ্ঠান বা দোকানে পণ্য সরবরাহ করা হবে তাদের সঙ্গে কথা বলে এ বিষয়ে একটি স্বচ্ছ ধারণা নেওয়া যাবে। কারখানার জন্য প্রয়োজনীয় সব উপকরণ পাওয়া যায় – এমন সঠিক স্থান নির্বাচন করতে হবে। বেকারি পণ্য বানাতে পারেন, এমন দক্ষ কর্মী নিয়োগ দিতে হবে।

প্রশিক্ষণ : বিভিন্ন সরকারি এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বেকারি পণ্য তৈরির ওপর প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে, যা মানসম্পন্ন খাদ্য তৈরি, প্রক্রিয়াকরণ, স্বাস্থ্যগত ও পরিবেশগত উপাদান, খাদ্যনিরাপত্তাসহ নানা বিষয়ে দক্ষতা উন্নয়নে কাজে লাগে। তবে এসব কাজের ক্ষেত্রে ভালো প্রতিষ্ঠানে হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ নিলেই ভালো হয়। এ জন্য বিভিন্ন কারখানা থেকে প্রশিক্ষণ নেওয়া যায়।

সম্ভাব্য পুঁজি : বেকারি ব্যবসার জন্য বড়সড় কারখানা দিতে পারেন, আবার শুরু করতে পারেন ছোট পরিসরেও। সবটাই নির্ভর করবে পুঁজির ওপর। প্রথমেই কারখানা ভাড়া নিয়ে মিকশ্চার মেশিন, ওভেনসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ক্রয় করতে হবে। স্বল্পপরিসরে শুরু করলে প্রথমে একটি ছোটখাটো কারখানা আর চার-পাঁচজন দক্ষ কর্মচারী নিলেই চলবে। এর পর প্রয়োজন অনুপাতে কর্মচারীর সংখ্যা ও কারখানার পরিসর বাড়ানো যেতে পারে। পণ্য সরবরাহ করার জন্য ভ্যানের প্রয়োজন হবে। প্রাথমিকভাবে একটা বেকারির ব্যবসা দাঁড় করাতে মোটামুটি দুই লাখ টাকা থেকে শুরু করে পাঁচ লাখ টাকা লাগতে পারে। যদি নিজের কাছে প্রয়োজনীয় পুঁজি না থাকে তবে ঋণদানকারী ব্যাংক, সরকারি বা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান (এনজিও) থেকে স্বল্প সুদে ঋণ নেওয়া যেতে পারে। এসব সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংক এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান (এনজিও) শর্ত সাপেক্ষে ঋণ দিয়ে থাকে।

প্রয়োজনীয় উপকরণ : একটি কারখানায়ই বিস্কুট, কেক, বিভিন্ন ধরনের রুটিসহ সব ধরনের বেকারি পণ্য বানানো যায়। প্রাথমিকভাবে বিস্কুট তৈরিতে লাগবে ওভেন, বিশেষ ধরনের টেবিল, ছাঁচ, পাতা মেশিন (যেখানে বিস্কুট কেটে রাখা হয়) এবং মিকশ্চার মেশিন। কেক বানাতে লাগবে ছাঁচ, বিশেষ ধরনের কাগজ, ছুরি। পাউরুটি বানাতে কিনতে হবে এক বা দুই পাউন্ডের ছাঁচ ও ব্রাশ। এসব যন্ত্রপাতি রাজধানীর বংশাল, নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাওয়া যায়। কিছু যন্ত্রপাতি আমদানি করা হয় ভারত ও চীন থেকে। এ ছাড়া লাগবে প্যাকেটজাত করা মেশিন, আটা, ময়দা, চিনি, তেলসহ প্রয়োজনীয় পণ্য।

সাবধানতা : ময়দা, ডিম থেকে শুরু করে সব উপাদান যখন একত্র করা হয়, তখন খেয়াল রাখতে হবে যাতে কোনো উপাদানই পরিমাণের চেয়ে কম বা বেশি না হয়। ওভেনে বেকারি সামগ্রী রাখার পর তাপমাত্রা সহনীয় পর্যায়ে রাখতে হবে। বেশি তাপে বিস্কুট পুড়ে নষ্ট হয়। আর পণ্যের গুণগত মানের দিকে বিশেষভাবে খেয়াল রাখতে হবে। কারণ একবার বাজারে সুনাম পেয়ে গেলে যেমনি খুব অল্প সময়ের মধ্যে সাফল্য অর্জন করা যায় ঠিক তেমনি দুর্নাম হলে উল্টো ঘটনা ঘটতে পারে।

বাজারজাতকরণ : বেকারি ব্যবসায় বাজারজাতকরণ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এর জন্য দু-তিনজন দ’ক্ষ লোক রাখতে হবে, যারা বিভিন্ন দোকানে পণ্য সরবরাহ করবেন। বেকারিতে উৎপাদিত এসব পণ্য যে কোনো এলাকায় অবস্থিত মুদি দোকানে বিক্রি করা যাবে। এ ছাড়া সুপার শপগুলোতেও বিক্রি করা যায়। বড় হাসপাতাল, করপোরেট অফিসসহ বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করে পণ্য সরবরাহ করা গেলে ব্যবসা বাড়বে। আবার নিজস্ব শোরুমেও বিক্রি করা যাবে। পণ্য পরিবহনের জন্য নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থা রাখা এ ব্যবসার একটি শর্ত বলা চলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *