Categories
কৃষি

কিশমিশ খাওয়ার উপকারিতা

আঙুর ফলের শুকনা রূপই হচ্ছে কিশমিশ< যা তৈরি করা হয় সূর্যের তাপ অথবা মাইক্রোওয়েভ ওভেনের সাহায্যে। তাপের কারণে আঙুরের ফ্রুক্টোজগুলো জমাট বেঁধে পরিণত হয় কিশমিশে। কিশমিশ খেতে আমরা অনেকেই পছন্দ করি। তবে এর পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানি না। ৭০ শতাংশ খাঁটি এই ফ্রুক্টোজ সহজেই হজমযোগ্য। স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের জন্য খাদ্যতালিকায় কিশমিশ রাখতে পারেন। আসুন জেনে নিই কিশমিশের পুষ্টিগুণ- ১. রক্তে লৌহের পরিমাণ কম হলে অবসাদ, দুর্বলতা, হতাশায় ভুগতে পারেন। এ ছাড়া শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও কমতে পারে। কিশমিশে প্রচুর পরিমাণে লৌহ আছে, যা রক্তশূন্যতা দূর করে।

২. কিশমিশ হাড় সুস্থ রাখে। হাড়ের এই রোগ প্রতিরোধ করতে বোরন নামের খনিজ পদার্থ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। আর কিশমিশ বোরনের অন্যতম উৎস। বোরনে রয়েছে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম— যা হাড় গঠনের পাশাপাশি শরীরে টেসটোসটেরন এবং ইস্ট্রোজেনের মাত্রা ঠিক রাখতে সাহায্য করে। ৩. অতিরিক্ত অ্যাসিডিটি বা রক্ত দূষিত হওয়াকে বলে অ্যাসিডোসিস, যা থেকে আথ্রাইটিস, চামড়া রোগ, হৃদরোগ এবং ক্যান্সার হতে পারে। অ্যান্টাসিডস হিসেবে পরিচিতি দুটি উপাদান ম্যাগনেসিয়াম এবং পটাশিয়াম শরীরের ক্ষরীয়ভাব স্বাভাবিক করে অ্যাসিডোসিসের হাত থেকে বাঁচায়। আর এই উপাদানগুলো কিশমিশে রয়েছে। ৪. নিয়মিত কিশমিশ খেলে বৃদ্ধ বয়সেও দৃষ্টিহীন হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। পাশাপাশি কিশমিশে থাকা পলিফেনল উপাদান ক্ষতিকারক ফ্রি-রেডিকেলস ধ্বংস করে চোখকে বিভিন্ন রোগ থেকে রক্ষা করে। ৫. বিষাক্ত পদার্থ দূর করে রক্ত পরিষ্কার রাখে কিশমিশ। এ ছাড়া রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। তথ্যসূত্র: বোল্ডস্কাই।

Categories
কৃষি

শীত মৌসুমে খামারিদের সঙ্গে লাভবান ব্যবসায়ীরাও

শীত মৌসুমের শুরুতেই লক্ষ্মীপুরে চলছে হাঁস বিক্রির। ঐতিহ্য হিসেবে শীত এলেই এ অঞ্চলে হাঁসের চাহিদা বাড়ে। শীতের শুরুতেই জাতভেদে এখন প্রতি জোড়া হাঁস বিক্রি হচ্ছে এক হাজার থেকে দেড় হাজার টাকায়। অধিক লাভের আশায় খামারি ছাড়াও বিভিন্ন স্থান থেকে হাঁস সংগ্রহ করে হাটবাজার ও গ্রামাঞ্চলে ফেরি করে বিক্রি করছেন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা। অল্প পুঁজিতে বেশি লাভ হওয়ায় দিন দিন এ ব্যবসায় অনেকেই।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, লক্ষ্মীপুরে শীত মৌসুমে হাঁসের একটি ব্যতিক্রমী ভোজনবিলাসের মাধ্যম হিসেবে পরিচিত। শীত এলেই এ অঞ্চলে হাঁসের বাড়ে। এ সময় লক্ষ্মীপুরের । এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

অধিক লাভের আশায় খামারিরা ছাড়াও চরাঞ্চলসহ বিভিন্ন স্থান থেকে হাঁস সংগ্রহ করে হাটবাজারে হাঁস বিক্রি করছেন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা। এ সময় অল্প কিছু মূলধন নিয়ে এ ব্যবসায় নেমে পড়েন তারা। ব্যাপক চাহিদা থাকায় এ অঞ্চলে হাঁস আমদানি করা হচ্ছে ভোলা, বরিশাল, চাঁদপুরসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকেও।

সদর উপজেলার চররুহিতা গ্রামের নজির, কামরুল, রনিসহ কয়েকজন হাঁস বিক্রেতা জানান, তারা চরাঞ্চল থেকে দুধ এনে শহরে ও গ্রামে ফেরি করে বিক্রি করেন। কিন্তু শীতকালে দুধের চাহিদা ও সরবরাহ কমে যাওয়ায় তারা চরাঞ্চল থেকে হাঁস ৪০০–৪৫০ টাকায় কিনে আনেন। পরে ফেরি করে বিক্রি করেন ৫০০–৭০০ টাকায়। এতে তারা বেশ লাভবান হচ্ছেন বলেও জানিয়েছেন।

সদর উপজেলার বশিকপুর ইউনিয়নের কয়েকজন জানান, ঐতিহ্য হিসেবে শীত এলেই এ অঞ্চলে হাঁসের চাহিদা বেড়ে যায়। হাঁস রান্না করা সময়সাপেক্ষ এবং একটু হওয়ায় দলগত কিংবা পারিবারিকভাবে শীতের সময়ে চলে হাঁস রান্নার আয়োজন।

একই উপজেলার দত্তপাড়া ইউনিয়নের রিপন হোসেন, জামাল মিয়াসহ কয়েকজন হাঁস ব্যবসায়ী বলেন, অন্য সময় হাঁস বেচাকেনা কম হলেও শীত মৌসুমে হাঁসের চাহিদা বেড়ে যায়। বিশেষ করে এ সময় নর (আড়িয়া) হাঁসের চাহিদা ও দাম বেশ ভালো। একেকটি পুরুষ হাঁস মানভেদে বিক্রি হয় ৬০০ থেকে ৮০০ টাকা। এ সময় খামারিরা যেমন লাভবান হন, তেমনি তারাও লাভবান হন বলে জানান।

কমলনগর উপজেলার তোরাবগঞ্জ গ্রামের বাসিন্দা রেশমা বেগম। তিনি জানান, তার খামারে ২৫টি দেশি মাদি ও ৭টি নর হাঁস রয়েছে। এতদিন মাদিগুলো থেকে ডিম বিক্রি করেছেন। এখন হাঁসের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এগুলো বিক্রি করে আবার নতুন করে বাচ্চা এনে তা লালন করবেন বলে জানান তিনি।

Categories
কৃষি

শখ ও চাহিদা পূরণে কবুতর পালন

কবুতর পালন বেশ লাভজনক। শান্তির প্রতীকও বিবেচনা করা হয়। আজকের আয়োজন পাখিটির বিভিন্ন দিক নিয়ে

কবুতর গৃহপালিত পাখি। একে শান্তির প্রতীক হিসেবেও ধরা হয়। প্রায় সব মানুষই কবুতর ভালোবাসে। তাই বাড়িতে পালন করে অনেকে বিভিন্ন চাহিদা মিটিয়ে থাকেন। কেউ শখের বশে, কেউবা পূরণে কবুতর লালন-পালন করেন। এর বেশ সুস্বাদু। তাই এর প্রতি আগ্রহও রয়েছে অনেকের। এসব চাহিদার কারণে বাড়ছে কবুতর পালন। এজন্য কিছু বিষয়ে খেয়াল রাখতে হয়। তবেই সফলতা আসে।
কবুতর মূলত তিন পদ্ধতিতে পালন
করা যায়:

মুক্ত পদ্ধতি কবুতরের ঘর আবাসস্থলের ২০০ থেকে ৩০০ ফুট দূরে দক্ষিণমুখী হতে হবে। মাটি থেকে এদের ঘরের উচ্চতা আট থেকে ১০ ফুট হবে। খোপ সাধারণত দুই থেকে তিনতলা বিশিষ্ট করা হয়। এমন খোপের আয়তন প্রতিজোড়া ছোট আকারের কবুতরের জন্য ৩০ সেন্টিমিটার ও বড় আকারের কবুতরের জন্য ৫০ সেন্টিমিটার হলে ভালো। ফলে কবুতর ইচ্ছেমতো চলাচলের সুযোগ পায়।

খাঁচা পদ্ধতি অনেক শৌখিন ব্যক্তি খাঁচায় বিভিন্ন ধরনের নজরকাড়া কবুতর পুষে থাকেন। তাদের পালন করা কবুতর যে কত সুন্দর হতে পারে, তা না দেখলে বিশ্বাস করা যায় না। এসব আকার কেমন হবে তা নির্ভর করে আপনি কোন ধরনের কবুতর পালতে চাচ্ছেন, তার ওপর। শুধু গিরিবাজ পালতে চাইলে ছোট বা মাঝারি আকারের খাঁচা হলেই চলে। সৌখিন কবুতর পালতে চান? তাহলে সাধারণের থেকে একটু বড় হতে হবে খাঁচা।

ঘরের ভেতরে উম্মুক্ত পদ্ধতি এ পদ্ধতিতে আনেক কবুতর একসঙ্গে পালন করা যায়। একটি খামারের জন্য ৩০ থেকে ৪০ জোড়া কবুতর আদর্শ। এমন ঘরের মাপ হবে দশমিক পাঁচ ফুট। অল্প খরচে সহজে ঘর তৈরি ও স্থানান্তর করার জন্য কাঠ, টিন, বাঁশ, খড় প্রভৃতি উপকরণ কাজে লাগান। ঘরের মধ্যে কবুতরের ডিম দেওয়ার জায়গা তৈরি করে দিতে হয়। অনেক সময় নরম ও শুকনো রেখে দিলে তারা ঠোঁটে করে নিয়েই নিজেরাই বাসা তৈরি করে নেয়।

সাধারণ বাসস্থান উচ্চ বাসস্থান কবুতর পালনের জন্য খুব দরকার। কেননা, যায়। তাছাড়া এতে পর্যাপ্ত সূর্যের আলো ও বাতাস চলাচলের ব্যবস্থাও পাওয়া যায়। সতর্ক থাকতে হবে বৃষ্টির পানি যাতে সেখানে না পৌঁছায়। তাই ব্যবস্থা রাখতে হবে। কবুতরের ঘর তৈরির জন্য পাতলা কাঠ বা টিন অথবা বাঁশ প্রয়োজন। প্রতিটি কবুতরের জন্য ৩০ সেন্টিমিটার লম্বা, উঁচু ও প্রশস্ত জায়গার প্রয়োজন। প্রতিটি ঘর এমনভাবে তৈরি করতে হবে, যাতে সেখানে তিনটি কবুতর থাকতে পারে। ঘরে সেন্টিমিটার পরিমাপের দরজা থাকতে হবে। সব সময় ঘর পরিষ্কার ও শুষ্ক রাখতে হবে। কাছাকাছি শুকনো খড় রাখুন। তারা নিজেরাই খড় দিয়ে নিজেদের মতো করে বিছানা করে নেবে। বাইরে পাতলা কাঠ পেতে রাখতে হবে, যাতে সেখানে খাবার ও পানি রাখা যায়। এখান থেকে এরা পান করবে ও পানির পাত্র থেকে গোসল করতে পারবে। সব সময় পরিষ্কার পানি পরিবেশনের চেষ্টা করতে হবে।

Categories
কৃষি

স্বল্পপুঁজিতে বেকারি ব্যবসা ব্যবসা উদ্যোগ ক্যারিয়ার টিপস

হালকা খাবারের ক্ষেত্রে বেকারির খাবার সবার সেরা পছন্দ। অতিথি আপ্যায়নের ক্ষেত্রেও জনপ্রিয় এই খাবারগুলো। বিকালের নাস্তার টেবিলে রুটি, বিস্কুট অথবা কেকের কোনো বিকল্প নেই। কেক ছাড়া জন্মদিন কিংবা কোনো প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানের কথা তো ভাবাই যায় না এখন। ইদানীং বেকারি পণ্য তালিকায় যুক্ত হয়েছে ফাস্টফুড, মিষ্টিসহ হরেক পদের মজার খাবার। এসব পণ্যের দাম সমাজের সব শ্রেণির মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকায় দিন দিন এর চাহিদা বাড়ছে। উৎপাদন খরচ কম হওয়ায় স্বল্পপুঁজিতে শুরু করা যায় এই বেকারি ব্যবসা।

প্রস্তুতি : বেকারির ব্যবসা শুরুর আগে বেকারি ব্যবসায়ে অভিজ্ঞদের কাছ থেকে পরামর্শ এবং তথ্য সংগ্রহ করা প্রয়োজন। বেকারি ব্যবসায়ী এবং যেসব প্রতিষ্ঠান বা দোকানে পণ্য সরবরাহ করা হবে তাদের সঙ্গে কথা বলে এ বিষয়ে একটি স্বচ্ছ ধারণা নেওয়া যাবে। কারখানার জন্য প্রয়োজনীয় সব উপকরণ পাওয়া যায় – এমন সঠিক স্থান নির্বাচন করতে হবে। বেকারি পণ্য বানাতে পারেন, এমন দক্ষ কর্মী নিয়োগ দিতে হবে।

প্রশিক্ষণ : বিভিন্ন সরকারি এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বেকারি পণ্য তৈরির ওপর প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে, যা মানসম্পন্ন খাদ্য তৈরি, প্রক্রিয়াকরণ, স্বাস্থ্যগত ও পরিবেশগত উপাদান, খাদ্যনিরাপত্তাসহ নানা বিষয়ে দক্ষতা উন্নয়নে কাজে লাগে। তবে এসব কাজের ক্ষেত্রে ভালো প্রতিষ্ঠানে হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ নিলেই ভালো হয়। এ জন্য বিভিন্ন কারখানা থেকে প্রশিক্ষণ নেওয়া যায়।

সম্ভাব্য পুঁজি : বেকারি ব্যবসার জন্য বড়সড় কারখানা দিতে পারেন, আবার শুরু করতে পারেন ছোট পরিসরেও। সবটাই নির্ভর করবে পুঁজির ওপর। প্রথমেই কারখানা ভাড়া নিয়ে মিকশ্চার মেশিন, ওভেনসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ক্রয় করতে হবে। স্বল্পপরিসরে শুরু করলে প্রথমে একটি ছোটখাটো কারখানা আর চার-পাঁচজন দক্ষ কর্মচারী নিলেই চলবে। এর পর প্রয়োজন অনুপাতে কর্মচারীর সংখ্যা ও কারখানার পরিসর বাড়ানো যেতে পারে। পণ্য সরবরাহ করার জন্য ভ্যানের প্রয়োজন হবে। প্রাথমিকভাবে একটা বেকারির ব্যবসা দাঁড় করাতে মোটামুটি দুই লাখ টাকা থেকে শুরু করে পাঁচ লাখ টাকা লাগতে পারে। যদি নিজের কাছে প্রয়োজনীয় পুঁজি না থাকে তবে ঋণদানকারী ব্যাংক, সরকারি বা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান (এনজিও) থেকে স্বল্প সুদে ঋণ নেওয়া যেতে পারে। এসব সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংক এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান (এনজিও) শর্ত সাপেক্ষে ঋণ দিয়ে থাকে।

প্রয়োজনীয় উপকরণ : একটি কারখানায়ই বিস্কুট, কেক, বিভিন্ন ধরনের রুটিসহ সব ধরনের বেকারি পণ্য বানানো যায়। প্রাথমিকভাবে বিস্কুট তৈরিতে লাগবে ওভেন, বিশেষ ধরনের টেবিল, ছাঁচ, পাতা মেশিন (যেখানে বিস্কুট কেটে রাখা হয়) এবং মিকশ্চার মেশিন। কেক বানাতে লাগবে ছাঁচ, বিশেষ ধরনের কাগজ, ছুরি। পাউরুটি বানাতে কিনতে হবে এক বা দুই পাউন্ডের ছাঁচ ও ব্রাশ। এসব যন্ত্রপাতি রাজধানীর বংশাল, নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাওয়া যায়। কিছু যন্ত্রপাতি আমদানি করা হয় ভারত ও চীন থেকে। এ ছাড়া লাগবে প্যাকেটজাত করা মেশিন, আটা, ময়দা, চিনি, তেলসহ প্রয়োজনীয় পণ্য।

সাবধানতা : ময়দা, ডিম থেকে শুরু করে সব উপাদান যখন একত্র করা হয়, তখন খেয়াল রাখতে হবে যাতে কোনো উপাদানই পরিমাণের চেয়ে কম বা বেশি না হয়। ওভেনে বেকারি সামগ্রী রাখার পর তাপমাত্রা সহনীয় পর্যায়ে রাখতে হবে। বেশি তাপে বিস্কুট পুড়ে নষ্ট হয়। আর পণ্যের গুণগত মানের দিকে বিশেষভাবে খেয়াল রাখতে হবে। কারণ একবার বাজারে সুনাম পেয়ে গেলে যেমনি খুব অল্প সময়ের মধ্যে সাফল্য অর্জন করা যায় ঠিক তেমনি দুর্নাম হলে উল্টো ঘটনা ঘটতে পারে।

বাজারজাতকরণ : বেকারি ব্যবসায় বাজারজাতকরণ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এর জন্য দু-তিনজন দ’ক্ষ লোক রাখতে হবে, যারা বিভিন্ন দোকানে পণ্য সরবরাহ করবেন। বেকারিতে উৎপাদিত এসব পণ্য যে কোনো এলাকায় অবস্থিত মুদি দোকানে বিক্রি করা যাবে। এ ছাড়া সুপার শপগুলোতেও বিক্রি করা যায়। বড় হাসপাতাল, করপোরেট অফিসসহ বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করে পণ্য সরবরাহ করা গেলে ব্যবসা বাড়বে। আবার নিজস্ব শোরুমেও বিক্রি করা যাবে। পণ্য পরিবহনের জন্য নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থা রাখা এ ব্যবসার একটি শর্ত বলা চলে।